প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়

চাকরির প্রস্তুতিঃ বাংলা সাহিত্য

Total Views: 819

সব ধরনের  চাকরির  প্রস্তুতি ও অনলাইনে পরীক্ষার মাধ্যমে আপনার মেধা যাচাই করার জন্যে আছে বিগত বছরের (bcs|bank|gov.job|MBA|NTRCA|PSC|Primary) এর ১০০০+ পরীক্ষার প্রশ্ন ও উত্তর। 
ভিজিট করুন
লিঙ্ক:  http://bdalljob.com/

 

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০১

উইলিয়াম কেরি
-১৭৬১ সালে ইংল্যান্ড জন্মগ্রহণ করেন।
-তিনি ১৮০০ সালে ‘শ্রীরামপুর মিশন’ প্রতিষ্ঠা করেন।
-তিনি ছিলেন ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান।
-১৮৩৪ সালের ৯ জুন মৃত্যুবরণ করেন।
বাংলা সাহিত্যে অবদান
মৌলিক – কথোপকথন: বাংলা ভাষায় মুদ্রিত প্রথম গ্রন্থ। বাংলা ভাষার কথ্যরীতির প্রথম নিদর্শন এই গ্রন্থে বিধৃত।
ইতিহাসমালা: বাংলা ভাষার প্রথম গল্প সংগ্রহ।
অনুবাদ গ্রন্থ: সর্বপ্রথম বাইবেল বঙ্গানুবাদ করেন।
বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.যে ইংরেজ ব্যক্তির কাছে বাংলাভাষা চির ঋণী হয়ে আছে তার নাম – (গনমাধ্যম ইনস্টিটিউট সহকারী পরিচালক:০৩)
-উইলিয়াম ক্যারি।
২.ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা বিভাগের প্রথম প্রধান ছিলেন – (তথ্য মন্ত্রণালয়ের সহকারী পরিচালক:০১)
-উইলিয়াম কেরি
৩.কোনটি উইলিয়াম কেরির রচনা? (থানা নির্বাচন অফিসার:০৪)
-কথোপকথোন
৪.বাংলা ভাষায় মুদ্রিত প্রথম গ্রন্থের নাম নির্দেশ করেন – (প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অফিসার:০৫)
-কথোপকথোন

রামরাম বসু
জন্ম: ১৭৫৭ সালে, হুগলি জেলার চুচুড়ায়।
তিনি ছিলেন ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা বিভাগের পন্ডিত।
তিনি উইলিয়াম কেরিকে ভালোভাবে বাংলা ভাষা শেখান।
তিনি ‘কেরি সাহেবের মুন্সি’ হিসেবে পরিচিতি পান।
মৃত্যু: ১৮১৩ সালে
বাংলা সাহিত্যে অবদান
প্রবন্ধ: রাজা প্রতাপাদিত্য চরিত্র: ১৮০১ সালে গ্রন্থটি বাংলা ভাষায় মুদ্রিত হয়। বাঙালী লেখা বঙ্গাক্ষরে মুদ্রিত মৌলিক গ্রন্থ। বাংলা গদ্যে প্রথম জীবনরচিত।
লিপিমালা: প্রথম বাংলা পত্রসাহিত্য।
বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.বাঙালীর লেখা বঙ্গাক্ষরে মুদ্রিত প্রথম মৌলিক গ্রন্থ কোনটি? (পিএসসি কর্তৃক নির্ধারিত ১২টি পদ:০১)
-রাজা প্রতাপাদিত্য চরিত্র
২.বাঙালি রচিত বাংলা সাহিত্যের প্রথম মুদ্রিত গ্রন্থের নাম কি? (প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ের সরকারী অফিসার:০৫)
-রাজা প্রতাপাদিত্য চরিত্র
৩.কেরি সাহেবের মুন্সি বলা হয় – (বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সহকারী পরিচালক:০৫)
-রামরামবসুকে

 

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০২

রাজা রামমোহন রায়
১৭৭২ সালে হুগলী জেলার এক তালুকদার পরিবারে রামমোহন রায়ের জন্ম হয়। তিনি ছিলেন একাধারে সমাজ শিক্ষা ও ধর্মীয় সংস্কারক। রাজা রামমোহন রায় সংস্কৃত, আরবি, ফারসি, ইংরেজি ভাষায় পান্ডিত্য লাভ করেন। গ্রিক, হিব্রু, সিরীয় ভাষায়ও দক্ষতা অর্জন করেন।
*১৮২৩ সালে সংবাদপত্রবিধি পাশ করা হলে রামমোহন এর বিরূদ্ধে তীব্র আন্দোলন শুরু করেন। তিনি সুপ্রীম কোর্টে একটি প্রতিবাদ লিপি দাখিল করেন। এ প্রতিবাদ লিপির প্রতিলিপি ইংল্যান্ডের প্রিভি কাউন্সিলে প্রেরণ করেন।
*১৮২৮ সালে রামমোহন রায় ‘ব্রাহ্মসভা’ প্রতিষ্ঠা করেন। এ সংগঠনের সদস্যগণ ব্রাহ্মসমাজ প্রতিষ্ঠা করেন। হিন্দু-ইসলাম-খ্রিষ্টধর্মের সার সংক্ষেপ করে একেশ্বরবাদের ওপর ভিত্তি করে রামমোহন ব্রাহ্ম ধর্ম প্রতিষ্ঠা করেন।
*সীতাদাহ প্রথা নিষিদ্ধকরণে ও বিধবা বিবাহ প্রচলনের স্বপক্ষে তিনি জোর প্রচারণা চালান ।
*তৎকালীন নামমাত্র দিল্লিশ্বর মোঘল বাদশা দ্বিতীয় আকবর তাঁর দাবি-দাওয়া ব্রিটিশ সরকারের কাছে পেশ করার জন্য ১৮৩০ সালে রামমোহন রায়কে বিলেতে পাঠান। এ উপলক্ষে সম্রাট তাকে ‘রাজা’ উপাধি দেন। রামমোহন রায় লন্ডনে গিয়ে কোম্পানির শাসনে ভারতীয়দের দূরাবস্থার কথা ব্রিটিশ পার্মেন্টকে অবহিত করেন।
*রাজা রামমোহন রায় ছিলেন পাশ্চাত্য শিক্ষার পক্ষপাতি। এ উদ্দেশ্যে তিনি কলকাতায় এ্যাংলো হিন্দু নামে একটি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন।
১৮৩৩ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর ইংল্যান্ডের ব্রিস্টল শহরে রাজা রামমোহন রায় ইহলোক ত্যাগ করেন।
বাংলা সাহিত্যে অবদান
বেদান্ত গ্রন্থ: তাঁর প্রথম গ্রন্থ।
পথ্য দান
গোস্বামীর সহিত বিচার: সতীদাহ প্রথার অযৌক্তিকতা প্রসঙ্গে।
প্রবর্তক ও নিবর্তকের সম্বাদ: সতীদাহ প্রথার অযৌক্তিকতা প্রসঙ্গে।
বেদান্ত সার।
ভট্টাচার্যের সহিত বিচার।
মনে রাখা ভাল
প্রশ্ন: ‘বেদান্ত গ্রন্থ’ বেদান্ত চন্দ্রিকা’ বেদান্ত সার’ গ্রন্থগুলোর রচয়িতা কারা?
উ: বেদান্ত গ্রন্থ: রাজা রামমোহন রায়।
বেদান্ত সার: রাজা রামমোহন রায়।
বেদান্ত চন্দ্রিকা: মৃত্যুঞ্জয় বিদ্যালঙ্কার।
বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.ব্রাহ্ম সমাজের প্রতিষ্ঠাতা হলেন – (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা: ০২-০৩)
-রাজা রামমোহন রায়।
২.কোন গ্রন্থটি রাজা রামমোহন রায়ের রচনা নয়? (পিএসসির কর্তৃক নির্ধারিত ১২টি পদ: ০১)
-বেদান্ত চন্দ্রিকা
৩.সতীদাহ প্রথা প্রসঙ্গে রামমোহন রায়ের রচিত পুস্তক (খাদ্য অধিদপ্তরের পরিদর্শক:০০)
-প্রবর্তক ও নির্বতকের সম্বাদ
৪.সতীদাহ প্রথা রহিতকরণে কোন সমাজ সংস্কারকের ভূমিকা উল্লেখযোগ্য? (সঞ্চয় পরিদ্প্তরের সহকারী পরিচালক:০২)
-রাজা রামমোহন রায়
৫.রাজা রামমোহন রায় যে বিষয়ের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেন – (জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৭-০৮)
-প্রেস অর্ডিন্যান্স

 

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০৩

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর
১৮২০ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মোদিনীপুর জেলার বীর সিংহ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম ঠাকুরদাস বন্দোপাধ্যায় এবং মায়ের নাম ভগবতী দেব। তার পারিবারিক নাম ঈশ্বরচন্দ্র বন্দোপাধ্যায়। ‘বিদ্যাসাগর’ ছিল তার উপাধি। ১৮৪০ সালে সংস্কৃত কলেজ থেকে তিনি বিদ্যাসাগর উপাধি লাভ করেন।কলেজের বাংলা বিভাগের প্রধান পন্ডিত হিসেবে কর্মজীবনের আরম্ভ করেন। সংস্কৃত কলেজের অধ্যক্ষ পদ থেকে তিনি অবসর গ্রহণ করেন। কলকাতয় নারী শিক্ষামন্দির ‘বেথুন কলেজ’ তার সহযোগীতায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। হিন্দু সমাজে বিধবা বিবাহ আইন পাস হয়। ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরকে বাংলা গদ্যের জনক বলা হয়। ১৮৯১ সালের ২৯ জুলাই বিদ্যাসাগরের মৃত্যু হয়।
বাংলা সাহিত্যে অবদান
অনুবাদ গ্রন্থ: বেতাল পঞ্চবিংশতি (১৮৪৭): প্রথম মুদ্রিত গ্রন্থ। হিন্দি ‘বৈতাল পৈচ্চিসি’ র অনুবাদ। ঈশ্বরচন্দ্র ছিলেন বাংলা সাহিত্যে বিরাম বা যতিচিহ্ন সফল প্রয়োগ করেন। যতি চিহ্ন ব্যবহার পূর্বক এ গ্রন্থ প্রকাশের মাধ্যমে বাংলা সাহিত্যে নতুন যুগের সূচনা হয়।
ভ্রান্তিবিলাস: শেক্সপিয়রের ‘Comedy of Errors’ এর বাংলা রূপ।
সীতার বনবাস: বাল্মীকির রামায়ন অবলম্বনে রচিত।
শকুন্তলা: কালিদাসের ‘অভিজ্ঞান শকুন্তলম’ এর অনুবাদ।
মৌলিক: প্রভাবতী সম্ভাষণ: বাংলা সাহিত্যে প্রথম মৌলিক গ্রন্থ। একটি শোকগাথা।
বিদ্যাসাগর চরিত: বাংলা গদ্যে প্রথম আত্মরচিত।
আবার অতি অল্প হইল।
অতি অল্প হইল।
ব্রজবিলাস
বিধবাবিবাহ প্রচলিত হওয়া উচিত কিনা এতদ্বিষয়ক প্রস্তাব।
বহু রহিত হওয়া উচিত কিনা এতদ্বিষয়ক বিচার।
পাঠ্যবই: বর্ণপরিচয় (১৮৫৫): ক্লাসিকের মর্যাদা লাভ করে।
কথামালা।
বোধোদয়।
আখ্যানমঞ্জরী।

বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর জন্মগ্রহণ করেন – (জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার:৯৩)
-১৮২০ সালে
২.ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের পারিবারিক নাম – (জনশক্তি, কর্সংস্থান ব্যুরোর উপসহকারী পরিচালক:০১)
-ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর
৩.ঈশ্বরচন্দ্রকে কোন প্রতিষ্ঠান ‘বিদ্যাসাগর উপাধি প্রদান করেন? (সহকারী জজ নিয়োগ পরীক্ষা:০৮)
-সংস্কৃত কলেজ
৪.হিন্দু সমাজে বিধবা বিবাহের প্রবর্তক – (গৃহায়ন মন্ত্রণালয়ের পরিচালক:৯৯)
-ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর
৫.বিধবাবিবাহ রহিত করণে কে কলমযুদ্ধ করেন – (সঞ্চয় পরিদপ্তরের সহকারী পরিচালক:০৯)
-ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর
৬.বাংলা গদ্যের জনক বলা হয় – (রাজশাহী বিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৫)
-ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরকে
৭.বাংলা গদ্যে প্রথম বিরামচিহ্ন ব্যবহারে কৃতিত্ত্ব কার? (মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক:০০)
-বিদ্যাসাগরের
৮.বাংলা ভাষায় বিরাম চিহ্নের ব্যবহার কোন সালে শুরূ হয়? (কর্সংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর উপপরিচালক:০৭)
-১৮৪৭
৯.কোন গ্রন্থ প্রকাশের মাধ্যমে বাংলা সাহিত্যে নতুন যুগের সূচনা হয়?
-বেতাল পঞ্চবিংশতি
১০.কোনটি বিদ্যাসাগরের রচনা? (সংস্থাপন মন্ত্রনালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা:০৭)
-বেতাল পঞ্চবিংশতি
১১.ঈশ্বচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মৌলিক রচনা? (সাব রেজিস্ট্রার:০১)
-প্রভাবতী সম্ভাষণ
১২.প্রভাবতী সম্ভাষণ কার রচনা? (২১ তম বিসিএস)
-ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর
১৩.বিদ্যাসাগরের ভ্রান্তিবিলাস কোন নাটকের গদ্য অনুবাদ? (২৩ তম বিসিএস)
-কমেডি অব এররস
১৪.শেক্সপিয়রের নাটকের বাংলা গদ্যরূপ দিয়েছেন – (পিএসসি নির্ধারিত ১২ টি পদ:০১)
-ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর
১৫.১৮৫৫ সালে বিধ্যাসাগরের লেখা কোন বইটি ক্লাসিক মর্যাদা লাভ করেছে? (পিএসসির সহকারী পরিচালক:৯৮)
-বর্ণপরিচয়

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০৪

দীনবন্ধু মিত্র

*১৮৩০ সালে নদীয়ার চৌবেড়িয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।
*১৮৭৩ সালের ১ নভেম্বর মৃত্যুবরণ করেন।
নাটক: নীল দর্পণ: নাটকটি ১৮৬০ সালে ঢাকার বাংলা প্রেস প্রকাশিত হয়। এটি ঢাকা থেকে প্রকাশিত বাংলার প্রথম গ্রন্থ। নাটকটির কাহিনী মেহেরপুর অঞ্চলের এবং নীলকর সাহেবদের অত্যাচারের চিত্র এতে অঙ্কিত হয়েছে। মাইকেল মধূসুদন দত্ত নাটকটির ইংরেজি অনুবাদ করে নাম দেন ‘Nill Darpan’ or ‘The Indigo planting Mirror’ । এই নাটকটি প্রথম মঞ্চস্থ হয় ঢাকাত্ এই নাটক দেখতে এসে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মঞ্চের অভিনেতাদের লক্ষ্য করে জুতা ছুড়ে মেরেছিলেন।
*নবীন তপস্বিনী।
*লীলাবতী।
*কমলে কামিনী।
প্রহসন: সধবার একাদশী: উনবিংশ শতাব্দীর মধ্যভাগে সুরা পান ও বেশ্যা বৃত্তি যুবকদের জীবনে বিপর্যয় সৃষ্টি করেছিল। এই সামাজিক বিপর্যয়ের কাহিনী নিয়ে নাটকটি রচিত।
*জামাই বারিক।
*বিয়ে পাগলা বুড়ো।
মনে রাখা ভাল
প্রশ্ন: ‘নীল দংশন’, ‘নীল দর্পন’, এবং ‘নীললোহিত’ গ্রন্থগুলোর রচয়িতা কারা?
-নীল দর্পন (নাটক) – দীন বন্ধু মিত্র
নীল দংশন (উপন্যাস) – সৈয়দ শামসুল হক
নীল লোহিত (গল্প) – প্রমথ চৌধুরী

বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.কোন গ্রন্থটি ঢাকা হতে প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল? (১৬ তম বিসিএস)
-নীলদর্পন
২.’নীল দর্পণ’ নাটকটি কোন শহর থেকে প্রকাশিত হয়েছিল? (প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পার্সোনাল অফিসার: ০৪)
-ঢাকা
৩.নীল দর্পন প্রথম মঞ্চস্থ হয় – (ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা:০২-০৩)
-ঢাকা
৪.’নীলদর্পণ’ কোন ধরণের রচনা? (মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের অধীনে উপজেলা মহিলা কর্মকর্তা: ০৫)
-নাটক
৫.’নীল দর্পণ’ নাটকটি কার লেখা? (রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক অফিসার: ৯০)
-দীনবন্ধু মিত্র
৬.বিখ্যাত ‘নীলদর্পণ’ নাটকটির ইংরেজি অনুবাদ কি নামে প্রকাশিত হয়েছিল? (চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা: ০২-০৩)
-ইন্ডিগো প্লান্টিং মিরর
৭.দীনবন্ধু মিত্রের কোন নাটক দেখতে গিয়ে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মঞ্চে জুতো ছুড়ে মেরেছিলেন? (শ্রম ও কর্সংস্থান মন্ত্রনালয়ের সহকারী পরিচালক: ০৩)
-নীল দর্পণ
৮.বাংলা ভাষায় প্রথম আর্থ সামাজিক রাজনৈতিক বিষয়ে নাটক লেখেন –(সঞ্চয় পরিদপ্তরের সহকারী পরিচালক: ০৯)
-দীনবন্ধু মিত্র
৯.লীলাবতী গ্রন্থটি সংক্রান্ত নিম্নোক্ত কোন তথ্যটি সঠিক?
-নাাটক, দীনবন্ধু মিত্র
১০.নিচের কোন নাটকের রচয়িতা দীনবন্ধু মিত্র? (পুলিশ সহকারী রাসায়নিক পরীক্ষক:০২)
-নবীন তপস্বিনী
১১.কোনটি দীনবন্ধু মিত্রের রচনা? (২৬ তম বিসিএস)
-কমলে কামিনী
১২.দীনবন্ধু মিত্রের প্রহসন কোনটি? (২৮ তম বিসিএস)
-বিয়ে পাগলা বুড়ো
১৩.সামাজিক নাটক কোনটি? (মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের অধীনে উপজেলা মহিলা কর্মকর্তা: ০৫)
-সধবার একাদশী

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০৫

শামসুর রহমান
*১৯২৯ সালের ২৪ অক্টোবর ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন।
*বাংলাদেশের সমকালের কবিগণের মধ্যে শ্রেষ্ঠ।
*মুক্তিযুদ্ধকালে তিনি ‘মজলুম আদিব’ ছদ্মনামে কবিতা লিখতেন।
*২০০৬ সালে ১৭ আগষ্ট পরোলকগমন করেন।
বাংলা সাহিত্যে অবদান
কাব্যগ্রন্থ – রৌদ্র করোটিতে
প্রতিদিন ঘরহীন ঘরে
প্রথম গান দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে
বাংলাদেশ স্বপ্ন দেখে
নিরালোক দিব্যরথ
বিধ্বস্ত নীলিমা
বন্দী শিবির থেকে
উদ্ভট উটের পিছে চলছে স্বদেশ
কবিতা: স্বাধীনতা তুমি
পশুশ্রম
তুমি আসবে বলে হে স্বাধীনতা
তোমাকে পাওয়ার জন্য হে স্বাধীনতা
উপন্যাস: অক্টোপাস
আত্মস্মৃতি – স্মৃতি শহর
কালের ধুলোয় লেখা
শিশুতোষ: এলাটিং বেলাটিং
ধান ভানলে কুঁড়ো দিবো
মনে রাখা ভাল
প্রশ্ন: ‘বিধ্বস্ত নীলিমা’ ও ‘অরণ্যে নীলিমা’ গ্রন্থগুলোর রচয়িতা কারা?
-বিধ্বস্ত নীলিমা (কাব্যগ্রন্থ): শামসুর রহমান।
অরণ্যে নীলিমা (উপন্যাস): আহসান হাবীব।

বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.কবি শামসুর রহমান কোন জেলায় জন্মগ্রহণ করেন? (সহকারী থানা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার: ৯৮)
-ঢাকা জেলায়
২.কোনটি শামসুর রহমানের রচনা? (২০ তম বিসিএস)
-নিরালোকে দিব্যরথ
৩.শামসুর রহমানের কাব্যগ্রন্থ কোনটি? (উপজেলা নির্বাচন অফিসার:০৮)
-প্রথম গান দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে
৪.শামসুর রহমানের কবিতা বইয়ের নাম – (যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক:৯৯)
-প্রতিদিন ঘরহীন ঘরে
৫.’প্রতিদিন ঘরহীন ঘরে’ কব্যগ্রন্থের রচয়িতা – (স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রসাসনিক কর্মকর্তা: ০১)
-শামসুর রহমান
৬.শামসুর রহমানের বিখ্যাত গ্রন্থ – (শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের উপসহকারী পরিচালক:০১)
-বিধ্বস্ত নীলিমা
৭.Which of the following is a book by poet Shamsher Rahman? (স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক অফিসার: ০৬)
-Bondi Shibir Theke
৮.’স্বাধীনতা তুমি’ কবিতাটি কে রচনা করেন? (আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে হাইকোর্ট রেজিষ্ট্রার: ৯৪)
-শামসুর রহমান
৯.’তুমি আসবে বলে হে স্বাধীনতা’ কার রচনা? (কর্মসংস্থান ব্যংক অ্যাসিসটেন্ট অফিসার: ০১)
-শামসুর রহমান
১০.এলাটিং বেলাটিং ও ধান ভনলে কুড়ো দেব শিশুতোষ গ্রন্থের প্রণেতা কে? (প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক: ০১)
-শামসুর রহমান
১১.শামসুর রহমানের আত্মজীবনী – (সঞ্চয় পরিদপ্তরের সহকারী পরিচালক: ০৯)
-কালের ধুলোয় লেখা

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০৬

মুনীর চৌধুরী
*১৯২৫ সালের ২৫ নভেম্বর মানিকগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন।
*নাট্যকার হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন।
*তিনি ১৯৬৫ সালে প্রথম টাইপ রাইটার নির্মাণ করেন যা মুনীর অপটিমা নামে পরিচিত।
*১৯৭১ সালে ১৪ ডিসেম্বর নিখোঁজ হন।

বাংলা সাহিত্যে অবদান
নাটক – রক্তাক্ত প্রান্তর: তার প্রথম উপন্যাস । নাটকটি ঐতিহাসিক ১৭৬১ সালের পানিপথের তৃতীয় যুদ্ধের কাহিনী এর মূল উপজীব্য। নাটকটির জন্য তিনি ১৯৬২ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পান।
কবর: ৫২ এর ভাষা আন্দোলন বিষয়ক। মুনীর চৌধুরী ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে থাকাকালীন নাটকটি লিখেছিলেন এবং নাটকটি রাজবন্দীদের দ্বারা অভিনীত হয়।
পলাশী ব্যারাক ও অন্যান্য।
চিঠি।
মানুষ।
দন্ডকারণ্য।
মুখরা রমনী বশীকরণ: শেক্সপিয়রের ‘The Taming of the Shrew’ এর অনুবাদ।
প্রবন্ধ: মীর মানস: ১৯৬৫ সালে ‘মীর মানস’ গ্রন্থের জন্য দাউদ পুরস্কার লাভ করেন।
মনে রাখা ভাল
প্রশ্ন: ‘কবর’ সাহিত্যকর্মটির লেখক কে?
-কবর (নাটক) – মুনীর চৌধুরী।
কবর (কবিতা) – জসীম উদ্দীন।

বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.বাংলায় টাইপ রাইটার নির্মাণ করেন – (বাংলাদেশ রেলওয়ে সহকারী কমান্ডেট: ০৭)
-মুনীর চৌধুরী
২.কোন সাহিত্যিক ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বরের শহীদ বুদ্ধিজীবী? (জনশক্তি ও কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর উপসহকারী পরিচালক:০১)
-মুনীর চৌধুরী
৩.’রক্তাক্ত প্রান্তর’ নাটকটির রচয়িতা কে? (প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক:০৯)
-মুনীর চৌধুরী
৪.মুনীর চৌধুরী রচিত নাটকটির নাম কি? (পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা:০৯)
-রক্তাক্ত প্রান্তর
৫.কোনটি ঐতিহাসিক নাটক? (১৩ তম বিসিএস)
-রক্তাক্ত প্রান্তর
৬.নিচের কোনটি নাটক? (তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে গণযোগাযোগ সহকারী তথ্য অফিসার:০৫)
-কবর
৭.’কবর’ নাটকটির রচয়িতা কে? (প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক:০৯)
-মুনীর চৌধুরী
৮.মুনীর চৌধুরীর কবর নাটকটির পটভূমি হলো – (জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার:৯৩)
-১৯৫২ এর ভাষা আন্দোলন
৯.১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারীর পটভূমি রচিত ‘কবর’ নাটকটির রচয়িতা কে?
-মুনীর চৌধুরী
১০.মুনীর চৌধুরী ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে থাকাকালীন কোন বিখ্যাত নাটকটি লিখেছিলেন? (জাতীয় সংসদ অধীন সহকারী সচিব:৯৬)
-কবর
১১.নিচের কোন নাটকটি মঞ্চায়ন করা হয় একটি কারাগারে? (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০১)
-কবর
১২.কবর নাটকটি সর্বপ্রথম অভিণীত হয় – (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৩)
-ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে
১৩.মুনীর চৌধুরীর অনূদিত নাটক কোনটি --- (উপজেলা মহিলা ও শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা:০৭)
-মুখরা রমনী বশীকরণ

 

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০৭

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
*১৮৭৬ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর হুগলির দেবানন্দপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।
*তিনি মূলত অপরাজেয় কথাশিল্পী নামে পরিচিত।
*১৯২৩ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় হতে ‘জগত্তারিনী’ পদক এবং ১৯৩৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে ডি.লিট উপাধি লাভ করেন।
*১৯৩৮ সালে ১৬ জানুয়ারী কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন।

বাংলা সাহিত্যে অবদান
গল্প: মন্দির: এটি তার প্রথম মুদ্রিত রচনা। প্রথম গল্প। কুন্তলীন পুরস্কার প্রাপ্ত।
বিলাসী: ভারতী পত্রিকায় প্রথম প্রকাশিত হয়। ‘ছবি” গল্পগ্রন্থের অন্তর্ভুক্ত।
মহেশ
হরিলক্ষী
বিন্দুর ছেলে
অনুরাধা
অভাগীর স্বর্গ
স্বামী
কাশিনাথ
প্রবন্ধ: নারীর মূল্য।
নাটক: ষোড়শী
বিজয়া
রমা
উপন্যাস: উপন্যাসের একটি বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেন।
বড়দিদি: এটি তার প্রথম উপন্যাস
শ্রীকান্ত: শ্রেষ্ঠ রচনা। ৪ খন্ডে প্রকাশিত। আত্মচরিত মূলক গ্রন্থ।
পথের দাবী:সরকার কর্তৃক বাজেয়াপ্ত।
গৃহদাহ: ত্রিভুজ প্রেমের চিত্র অঙ্কিত হয়েছে।
দেবদাস
দত্তা
পল্লীসমাজ
দেনা-পাওনা
নববিধান
পরিনীতা
বিরাজ বৌ
চরিত্রহীন ইত্যাদি।
প্রশ্ন: ‘পথের পাচালী’ ও ‘পথের দাবি’ গ্রন্থগুলোর রচয়িতা কারা?
উ: পথের পাচালী: বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়।
পথের দাবি: শরৎচন্দ্র চট্টোপাদ্যায়।
প্রশ্ন: ‘চন্দ্রনাথ’ ও ‘চন্দ্রদ্বীপের উপাখ্যান’ গ্রন্থগুলোর রচয়িতা কারা?
-চন্দ্রদ্বীপের উপাখ্যান: আবদুল গাফফার চৌধুরী।
চন্দ্রনাথ: শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়।

বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন্মস্থান কোথায়? (পরিবার কল্যান কর্মকর্তা:০৯)
-দেবানন্দপুর গ্রাম
২.কত খ্রিষ্ট্রাব্দে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘জগত্তারিণী’ পদক লাভ করেন? (২৭ তম বিসিএস)
-১৯২৩ সালে
৩.সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়কে কোন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মানসূচক ডি.লিট ডিগ্রী প্রদান করা হয়? (বাংলাদেশ রেলওয়ে সহকারী কমান্ডেট: ০৭)
-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৪.কত সালে শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়কে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে ডি.লিট ডিগ্রী প্রদান করা হয়? (সহকারী শ্রম পরিচালক:০৩)
-১৯৩৬ সালে
৫.শরৎচন্দ্রের প্রথম উপন্যাস কোনটি? (সহকারী জজ নিয়োগ পরীক্ষা:০৮)
-বড়দিদি
৬. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের শ্রেষ্ঠ রচনা কোনটি? (প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী পরিচালক:০৭)
-শ্রীকান্ত
৭.কোনটি সঠিক? (২২ তম বিসিএস)
-পথের দাবী (উপন্যাস)
৮.পথের দাবী উপন্যাসের রচয়িতা কে? (প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী পরিচালক:০৭)
-. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
৯.’পথের দাবী’ শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের একটি –
-উপন্যাস
১০.শরৎচন্দ্রের কোন উপন্যাসটি সরকার কর্তৃক বাজেয়াপ্ত হয়েছিল – (২৪ তম বিসিএস)
-পথের দাবী
১১.’গৃহদাহ’ উপন্যাসের লেখক হলেন – (আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ:০০)
-. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
১২.পল্লিসমাজ উপন্যাসের রচয়িতা কে?
-. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
১৩. শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের কোন উপন্যাসে ত্রিভুজ প্রেমের চিত্র অঙ্কিত হয়েছে?
-গৃহদাহ
১৪.’বৈকুন্ডের উইল’ কার রচনা? (বাংলাদেশ টেলিভিশনের রিসার্চ অফিসার: ০৬)
-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
১৫.কোন গ্রন্থটি শরৎচন্দ্র রচিত নয়? (আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ:০০)
-মৃত্যু ক্ষুধা
১৬.কোন উপন্যাসটি বাংলা সাহিত্যের কথাশিল্পী শরৎচন্দ্র রচিত নয়? (বাংলাদেশ ব্যাংক সহকারী পরিচালক:০৪)
-চোখের বালি

 

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০৮

বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন
১৮৮০ সালে ৯ ডিসেম্বর রংপুর জেলার পায়রাবন্দ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন মুসলীম নারী জাগরণের অগ্রদূত। তিনি ১৯১১ সালে কলকাতায় ‘সাখাওয়াত মেমোরিয়াল গার্লস স্কুল’ প্রতিষ্ঠা করেন। নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য প্রতিষ্ঠা করেন ‘আঞ্জমান খাওয়াতিনে ইসলাম’। তার নামানুসারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি হলের নামকরণ করা হয় ‘রোকেয়া ছাত্রীনিবাস’। ১৯৩২ সালে ৯ ডিসেম্বর তিনি মৃত্যুবরণ করেন।
বাংলা সাহিত্যে অবদান
প্রবন্ধ – মতিচুর: তার প্রথম গ্রন্থ।
উপন্যাস – অবরোধবাসিনী: লেখিকার শ্রেষ্ঠ গ্রন্থ।
পদ্মারাগ।
সুলতানার স্বপ্ন।

বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.বেগম রোকেয়ার জন্মস্থান কোন জেলায়? (জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৬)
-রংপুর
২.রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের জন্মস্থান – (শ্রম মন্ত্রণালয়ের অধীন সহকারী পরিচালক:০৫)
-১৮৮০ সালে
৩.রোকেয়া দিবস কোন তারিখে পালিত হয়? (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৪)
-৯ ডিসেম্বর
৪.৯ ডিসেম্বর – (রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৭)
-রোকেয়া দিবস
৫.এই লেখিকা মুসলিম নারী জাগরণের অগ্রদূত – (২৯ তম বিসিএস)
-রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন
৬.বেগম রোকেয়া লেখনী ধারণ করেছিলেন – (বাংলাদেশ টেলিভিশনের প্রযোজক:০৬)
-নারীদের কুসংস্কারমুক্ত ও শিক্ষিত করতে
৭. বেগম রোকেয়া লেখনী ধারণ করেছিলেন – (তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে তথ্য অফিসার:০৩)
-সমাজে প্রচলিত কুসংস্কারের বিরূদ্ধে
৮.বেগম রোকেয়ার রচনা কোনটি? (১১ তম বিসিএস)
-অবরোধবাসিনী
৯.বেগম রোকেয়ার শ্রেষ্ঠ কাব্যগ্রন্থ কোনটি?
-মতিচুর
১০.বেগম রোকেয়ার রচনা কোনটি? (থানা শিক্ষা অফিসার:০৪)
-মতিচুর
১১.’মতিচুর’ গ্রন্থের রচয়িতা কে? (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৪)
-বেগম রোকেয়া
১২. বেগম রোকেয়া রচিত গ্রন্থ কোনটি? (প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক:০১)
-পদ্মরাগ
১৩.’পদ্মরাগ’ কার রচনা?
-বেগম রোকেয়া
১৪.’সুলতানার স্বপ্ন’ কোন ধরণের গ্রন্থ? (পি.এস.সির সহকারী পরিচালক:০৪)
-উপন্যাস
১৫.বাংলাদেশের কোন মহীয়সী নারীর রচনা ‘সুলতানার স্বপ্ন’? (বাংলাদেশ টেলিভিশনের প্রযোজক:০৬)
-বেগম রোকেয়া

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-০৯

জহির রায়হান
১৯৩৫ সালের ১৯
আগষ্ট ফেনী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি শহীদুল্লাহ কায়সারের সহোদর ভ্রাতা।
প্রকৃত নাম মোহাম্মদ জহিরুল্লাহ।
১৯৫২ সালের রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন।
১৯৭২ সালের ৩০ জানুয়ারি মিরপুরে নিখোজ হন।

বাংলা সাহিত্যে অবদান
উপন্যাস – হাজার বছর ধরে: উপন্যাসটির জন্য আদমজি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন। এই উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত চলচিত্র জাতীয় পুরস্কার পায়।
আরেক ফাল্গুন: বাহান্নর ভাষা আন্দোলনভিত্তিক।
বরফ গলা নদী।
আর কতদিন।
শেষ বিকেলের মেয়ে।
কয়েকটি মৃত্যু।
গল্পগ্রন্থ: সূর্যগ্রহণ।
গল্প: একুশের গল্প।
চলচিত্র- বাংলাদেশের সর্বকনিষ্ঠ চলচিত্রকার।
কখনও আসেনি: জহির রায়হানের প্রথম পরিচালিত চলচিত্র।
কাঁচের দেয়াল: নিগার পুরস্কার লাভ করে।
সঙ্গম: বাংলাদেশের প্রথম রঙিন চলচিত্র। ১৯৭০ সালে নির্মিত।
জীবন থেকে নেওয়া: বাহান্নর ভাষা আন্দোলন ভিত্তিক। বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বপ্রথম এই চলচিত্রে জাতীয় সঙ্গিত বাজানো হয়।

বিভিন্ন প্রতিযোগীতা মূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.জীবনমুখী সমাজসচেতন কথা সাহিত্যিক জহির রায়হানের আসল নাম কি? (রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৭)
-মোহম্মদ জহিরুল্লাহ
২.’আরেক ফাল্গুণ’ এর লেখক কে? (সহকারী থানা পরিকল্পনা অফিসার:৯৮)
-জহির রায়হান
৩.নিচের গ্রন্থগুলোর মধ্যে কোনটি কাব্যগ্রন্থ নয়? (দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা:০৪)
-হাজার বছর ধরে
৪.’হাজার বছর ধরে উপন্যাসটির রচয়িতা কে? (খাদ্য পরিদর্শক:০৯)
-জহির রায়হান
৫.প্রয়াত জহির রায়হানের কোন উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত চলচিত্র জাতীয় পুরস্কার পায়? (সহকারী থানা পরিকল্পনা অফিসার:৯৮)
-হাজারো বছর ধরে
৬.কোনটি জহির রায়হানের রচনা? (জেলা নির্বাচন অফিসার:০৪)
-বরফ গলা নদী
৭.কোনটি জহির রায়হানের উপন্যাস নয়?
-নিষ্কৃতি
৮.বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ চলচিত্রকার কে? (রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৭)
-জহির রায়হান
৯.’জীবন থেকে নেয়া’ চলচিত্রটির পরচালক ছিলেন –
-জহির রায়হান

প্রধান বাংলা সাহিত্যিক ও তাঁদের কর্মের পরিচয়: পার্ট-১০

আখতারুজ্জামান ইলিয়াস:
১৯৪৩ সালের ১২ ফেব্রুয়ারী গাইবান্ধা জেলায় জন্মগ্রহণ করে।
১৯৯৭ সালের ৪ জানুয়ারি ক্যান্সারে মারা যান।

বাংলা সাহিত্যে অবদান
উপন্যাস – চিলে কোঠার সিপাই: উনসত্তরের গণআন্দোলনের প্রেক্ষাপটে রচিত।
খোয়াবনামা: তেভাগা আন্দোলন, ১৯৪৩ সালে এর মন্বন্তর, ফকির সন্ন্যাসীর বিদ্রোহ প্রভৃতি ঐতিহাসিক উপন্যাসে নিখুতভাবে উপস্থাপিত হয়েছে।
গল্প: দুধে ভাতে উৎপাত।
দোজখের ওম
অন্য ঘরে অন্য স্বর
খোয়ারি
গ্রন্থ: সংস্কৃতি ভাঙ্গা সেতু

প্রশ্ন: ‘খোয়াবনামা’, ‘নুরনামা’, ‘সফরনামা’, ‘সিকান্দারনামা’ গ্রন্থগুলোর রচয়িতা কারা?
-খোয়াব নামা (উপন্যাস): আখতারুজ্জামান ইলিয়াস
জঙ্গনামা (কাব্যগ্রন্থ): ফকির গরীবুল্লাহ
নূরনামা (কাব্যগ্রন্থ): আবদুল হাকিম
সফরনামা (প্রবন্ধ): আবদুল ফজল
সিকান্দারনামা (কাব্যগ্রন্থ): আলাওল

বিভিন্ন প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার প্রশ্নোত্তর
১.’সংস্কৃতির ভাঙা সেতু’ গ্রন্থ কে রচনা করেছেন? (২০ তম বিসিএস)
- আখতারুজ্জামান ইলিয়াস
২.’দুধে ভাতে উৎপাত’ গ্রন্থের রচয়িতা – (২৩ তম বিসিএস)
- আখতারুজ্জামান ইলিয়াস
৩.’দুধে ভাতে উৎপাত’ আখতারুজ্জামান ইলিয়াস এর একটি – (সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা: ০৭)
-গল্পগ্রন্থ
৪.’চিলে কোঠার সেপাই’ উপন্যাসটি কার লেখা? (প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক:০৯)
- আখতারুজ্জামান ইলিয়াস
৫.কোনটি আখতারুজ্জামান ইলিয়াস এর লেখা গ্রন্থ? (বাংলাদেশ টেলিভিশনের প্রযোজক:০৬)
-চিলেকোঠার সেপাই
৬.কোনটি উপন্যাস? (প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক:০৯)
-খোয়াবনামা
৭.’খোয়াবনামা’ উপন্যাসের রচয়িতা কে? (ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা:০৫)
- আখতারুজ্জামান ইলিয়াস

সংগৃহিত 

 

আবেদনের শেষ তারিখঃ na

লোকেশনঃ বাংলাদেশ

Source: online